অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে

অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে

বর্তমানে অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।  অনলাইনে ইনকাম করার জন্য অনেকে চিন্তা-ভাবনা করিতেছে কিন্তু কম্পিউটার বা ল্যাপটপ না থাকায় তারা অনলাইনে ইনকাম শুরু করতে সক্ষম হচ্ছে না। তাদের জন্য আমার আজকের এই পোস্ট অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে [year]। 

অনলাইনে ইনকাম করার অনেক উপায় আছে। তার মধ্যে ইউটিউবে ইনকাম  সবচেয়ে জনপ্রিয় ও  আকর্ষণীয় মাধ্যম। অনলাইনে ইনকাম করার জন্য সবচেয়ে সহজ ও  বিশ্বাস যোগ্য মাধ্যম হলো ইউটিউব।  তাই তো অনলাইনে ইনকাম মোবাইল দিয়ে  [year] এর ১ম টপিক হলো ইউটিউবে ইনকাম।  নিচে অনলাইনে ইনকাম মোবাইল দিয়ে [year] এর ইউটিউবে ইনকামসহ ৫টি গুরুত্বপূর্ণ টপিক তুলে ধরা হলোঃ

১।  অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে [year] – ইউটিউবে ইনকাম।

অনলাইনে ইনকাম করার জন্য সবচেয়ে সহজ ও বিশ্বাস যোগ্য মাধ্যম হলো ইউটিউব।  বাংলাদেশের হাজার হাজার ছেলে-মেয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছেন ইউটিউব থেকে। ইউটিউবে ইনকাম করার জন্য প্রাথমিক অবস্থায় কম্পিউটার বা ল্যাপটপ না থাকলেও চলবে।  তবে আপনার একটা স্মার্টফোন থাকা লাগবে। মোবাইল দিয়ে ভিডিও করে ইউটিউবে অপলোড করতে হবে।

আকর্ষণীয় থাম্বনাইল ব্যবহার করতঃ প্রপার এসইও করে ভিডিও তে ভিউয়ার আনতে পারলে আপনার অনলাইন ইনকাম শুরু হয়ে যাবে। মোবাইল দিয়ে ভিডিও করে আপনি ইউটিউবে ইনকাম করতে পারবেন ভালো ভাবেই।

ইউটিউবে ইনকাম করার শর্তাবলীঃ

> ভিডিও এর কন্টেন্ট অবশ্যই ইউনিক হতে হবে। কপি পেস্ট করে ভিডিও আপলোড করা যাবে না।

>  মোবাইল দিয়ে ভিডিও করলেও যেন ভিডিও এর কোয়ালিটি খারাপ না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। 

> ভিডিও এর অডিও কোয়ালিটি পারফেক্ট হতে হবে। 

> আকর্ষণীয় থাম্বনাইল ব্যবহার করতে হবে। 

> এসইও ফেন্ডলি পোস্ট করতে হবে। 

> যত বেশি সম্ভব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে ভিজিটর আনতে হবে।

> যখন আপনার চ্যানেল এ ১২ মাসের মধ্যে ১০০০ সাবস্ক্রাইব এবং ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচ টাইম পুরন হবে তখন এডসেন্স এপ্লাই করার মাধ্যমে ইউটিউবে ইনকাম শুরু হবে।

২। অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে – ব্লগিং করে টাকা আয়।

দ্বিতীয় টপিক হলো ব্লগিং। আপনারা যারা অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে শুরু  করতে চাচ্ছেন তাদের জন্য পারফেক্ট হচ্ছে ব্লগিং। আপনি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে খুব ভালো ভাবেই ব্লগিং করতে পারবেন আশা করি।  তবে হ্যাঁ কম্পিউটার অথবা ল্যাপটপ এর মতো এত সুবিধা হয়তো মোবাইলে পাবেন না।  কিন্তু কাজ করা যাবে ভালো ভাবেই। 

মোবাইলে দিয়ে ব্লগিং করার বেস্ট প্লাটফর্ম হচ্ছে ব্লগস্পট ও ওয়াডপ্রেস।  তবে নতুন অবস্থায় ব্লগস্পটের মাধ্যমে ব্লগিং শুরু করা উচিত। পরবর্তীতে কিছু দিন ব্লগিং করে জানার পরিধি বাড়িয়ে ওয়াডপ্রেস এ কাজ করা যাবে। কারণ ওয়াডপ্রেস অনেক বেশি ফিচার সমৃদ্ধ।

এখন প্রশ্ন হলো  কিভাবে ফ্রি ওয়েবসাইট বানানো যায়। ফ্রি ওয়েবসাইট বানিয়ে অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে শুরু করার জন্য গুগল প্লেষ্টোর থেকে ব্লগস্পট অ্যাপস ডাউনলোড করে নিতে পারেন।  তাহলে মোবাইল দিয়ে ব্লগস্পটে ব্লগিং করতে সুবিধা পাবেন। একটি ভালো মানের ব্লগ সাইট তৈরি করতে পারলে সেখান থেকে মাসে এক দেড় হাজার ডলার আয় করা যায় অনায়াসে।

বাংলাদেশ থেকে অনেকে ব্লগিং করে এর থেকে বেশি পরিমাণ টাকা ইনকাম করছে প্রতিমাসে।  তাই সময় নষ্ট না করে মোবাইল দিয়েই শুরু করুন অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ব্লগিং। 

ব্লগিং করে আয় করার শর্তাবলীঃ

> ব্লগিং এমন একটি জায়গা যেখানে আপনি আপনার প্রতিভার সাক্ষর রাখতে পারবেন।  কন্টেন্ট কে  বলা হয় ব্লগিংয়ের কিং বা রাজা। তাই আপনার মেধা ও প্রতিভা দিয়ে ইউনিক কন্টেন্ট লিখতে হবে। কোন কপি পেস্ট কন্টেন্ট ব্যবহার করলে ব্লগিং আসল উদ্দেশ্য ব্যাহত হবে।

> যে বিষয় নিয়ে আপনি ওয়েবসাইট তৈরি করবেন সেখানে নিয়মিত পোস্ট দিতে হবে।

> ব্লগিং এর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো এসইও। আপনার ওয়েবসাইটে অবশ্যই এসইও রুলস মেনে ডেকোরেশন ও পোস্ট দিতে হবে।

> ভিজিটর হলো ওয়েবসাইটের প্রাণ। তাই বেশি বেশি ভিজিটর পাওয়ার জন্য আপনার ওয়েবসাইট টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন। টুইটার, ইনস্টাগ্রাম, পিইন্টারেস্ট ইত্যাদি জায়গায় মার্কেটিং করুন। 

৩। অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে – ফেসবুক পেজ থেকে টাকা ইনকাম।

অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে [year] এর আমার  তৃতীয় টপিক হলো ফেসবুক পেজ থেকে টাকা ইনকাম। বর্তমানে আমরা সবাই কম বেশি ফেসবুক চালায় মোবাইল দিয়ে।  ফেসবুক চালনাকারী প্রায় নব্বই ভাগ মোবাইলের মাধ্যমে ফেসবুক ব্যবহার করে থাকে। 

ফলে আজকের টপিক “অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ” ফেসবুকের মাধ্যমে আরও সহজে করা যায়। মোবাইলের মাধ্যমে ফেসবুক ব্যবহার করে কয়েকটি উপায়ে অনলানে ইনকাম করা যায়। তারমধ্যে উল্ল্যেখযোগ্য হলো ফেসবুক পেজ এ ইউটিউব এর মত  ভিডিও আপ লোডের মাধ্যমে। 

ভিডিও আপলোড এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করার শর্তাবলীঃ

> যদি আপনার ফেসবুক পেজ এ ১০ হাজার ফলোয়ার থাকে এবং গত ৬০ দিনে উক্ত পেইজ এ  আপলোডকৃত ভিডিও এর ভিউ ৩০০০০ মিনিট তাহলে আপনার ফেসবুক পেজ এ আপলোডকৃত ভিডিও এর জন্য মোনিটাইজেশন পাবেন। এক্ষেত্রে চপ্রত্যেকটি ভিডিও এর ভিউ কমপক্ষে এক মিনিট হতে হবে। 

> ইউটিউব এর মত কোন কপি পেস্ট ভিডিও আপলোড করা যাবেনা।

> ফেসবুকে আপলোড কৃত ভিডিওর দৈর্ঘ্য কমপক্ষে এক মিনিট করে হতে হবে। 

উপরের বিষয় গুলি লক্ষ্য করে ফেসবুক পেজ এ ভিডিও আপলোড করে অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে সুন্দর ভাবে করা যাবে বলে আশা করা যায়। অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ২০২০।

৪। অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে – কন্টেন্ট রাইটিং

অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে [year] এর চতুর্থ টপিক হলো কন্টেন্ট রাইটিং। মোবাইল এর মাধ্যমে কন্টেন্ট রাইটিং করে আপনি ভালো পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনি বাংলা ভাষায় ও কন্টেন্ট রাইটিং করতে পারেন। বিভিন্ন ওয়েবসাইট আছে যারা বাংলা ভাষার কন্টেন্ট ক্রয় করে এবং বিকাশের মাধ্যমে পেমেন্ট দেয়।

গুগল ম্যাপ কিভাবে ব্যবহার করতে হয় 

আপনি যদি প্রফেশনালি কন্টেন্ট রাইটিং করতে পারেন তাহলে কন্টেন্ট রাইটিং করে ভালো ইনকাম করতে পারবেন আশা করি। অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে [pyear]।

৫। অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে – ড্রপ শিপিং বিজনেস।

অন লাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে [year] এর ৫ম টপিক হলো ড্রপ শিপিং বিজনেস। আপনি আপনার মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ড্রপ শিপিং বিজনেস এর মাধ্যমে বিভিন্ন দ্রব্যাদি বিক্রয় করে অনলাইনে ইনকাম করতে পারেন। 

ড্রপ শিপিং বিজনেস করার জন্য আপনার প্রয়োজন হবে একটা ওয়েবসাইট। আপনি প্রসিদ্ধ কিছু প্রতিষ্ঠান এবং বিশ্বস্ত ই-কমার্স সাইট এর সাথে ডিলের মাধ্যমে  তাদের পণ্যের বিক্রিত মুল্যের চেয়ে আপনার ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে বেশি মুল্যে পণ্য বিক্রয় করার মাধ্যমে মুলত ড্রপ শিপিং বিজনেস করা হয়।

পরিশেষে 

অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে [year] এর ৫টি গুরুত্বপূর্ণ টপিক আপনাদের সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। উক্ত টপিক গুলোর মধ্যে থেকে আপনারা যে বিষয়ে দক্ষ বলে নিজেকে মনে করবেন সেই বিষয়ে অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে শুরু করতে পারেন।  মনে রাখবেন কোন কিছুই অসম্ভব নয় যদি প্রচন্ড ইচ্ছা শক্তি থাকে অনলাইন থেকে মোবাইল দিয়ে ইনকাম করার।  ধন্যবাদ ভালো থাকা হয় যেন।

Leave a Comment