MS WORD কি? MS WORD এর কাজ কি

MS WORD কি তা অনেকেই জানেন না। ms ওয়ার্ড হচ্ছে মাইক্রোসফট এর জনপ্রিয় অফিস এপ্লিকেশন গুলোর মাঝে একটি। ms ওয়ার্ড দিয়ে ওয়ার্ড প্রসেসিং এর বিভিন্ন কাজ অনেক সুন্দর ও সুনিপুণ ভাবে করা হয় থাকে যা অন্য কোনো এপ্লিকেশন দিয়ে করা অনেক কঠিন এবং সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। মাইক্রোসফট এর অফিস এপ্লিকেশন গুলোর মাঝে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, মাইক্রোসফট এক্সেল, পাওয়ারপয়েন্ট, মাইক্রোসফট অফিস, আউটলুক এবং ওয়ান ড্রাইভ সহ আরো অনেক এপ্লিকেশন রয়েছে। আজকের এই পোস্টে আমরা ms word কি? ms word এর কাজ কি এসব বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো।

ms word কি?

MS WORD কি
MS WORD কি

কম্পিউটারে ওয়ার্ড প্রসেসিং এর কাজ অর্থাৎ, চিঠি লেখা, আবেদন পত্র লেখা, দলিল লেখা, যেকোনো ধরনের ডকুমেন্ট তৈরি করা, স্কুল-কলেজের প্রশ্নপত্র তৈরি করার কাজে মাইক্রোসফট এর তৈরি যে অফিস এপ্লিকেশন ব্যবহার করা হয়ে থাকে, সেটি হচ্ছে ms word বা মাইক্রোসফট ওয়ার্ড(Microsoft Word)।

আমরা কম্পিউটারে যে অপারেটিং সিস্টেম Windows ব্যবহার করি, সেটি মাইক্রোসফট কোম্পানির তৈরি। মাইক্রোসফট কোম্পানি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থিত। মাইক্রোসফট কোম্পানির তৈরি অনেক অফিস এপ্লিকেশন রয়েছে যেগুলো দিয়ে বিভিন্ন অফিসিয়াল কাজ করা হয়ে থেকে। এগুলো হচ্ছে – মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, মাইক্রোসফট এক্সেল, পাওয়ারপয়েন্ট, মাইক্রোসফট অফিস, আউটলুক এবং ওয়ান ড্রাইভ ইত্যাদি।

প্রতিটি অফিস এপ্লিকেশন এর কাজ আলাদা আলাদা। মাইক্রোসফট ওয়ার্ড এপ্লিকেশন দিয়ে সাধারণত ওয়ার্ড প্রসেসিং র বিভিন্ন কাজ করা হয় থাকে। ms word কি তা তো জানা হলো। তো চলুন, এখন ms word এর কাজ কি দেখে নেয়া যাক।

ms word এর কাজ কি?

প্রতিটি অফিস এপ্লিকেশন আলাদা আলাদা কাজে ব্যাবহার করা হয়ে থাকে। মাইক্রোসফট এক্সেল দিয়ে যেমন অফিসের বিভিন্ন তথ্য স্প্রেডশীটে সংরক্ষণ করা হয়, তেমনি মাইক্রোসফট ওয়ার্ড দিয়ে বিভিন্ন ওয়ার্ড প্রসেসিং এর কাজ করা হয়ে থাকে। কম্পিউটার দিয়ে বিভিন্ন ডকুমেন্ট তৈরি, টাইপিং এর কাজ, চিঠি বা আবেদন পত্র তৈরি করা, দলিল লেখা, প্রশ্নপত্র তৈরি করা, প্রবন্ধ লেখা সহ বিভিন্ন রিপোর্ট লেখার কাজে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

মাইক্রোসফট ওয়ার্ড বা ms word এ ওয়ার্ড প্রসেসিং এর জন্য যেসব ফিচার রয়েছে, তা অন্য কোনো প্রোগ্রামে নেই। এতে করে এই এপ্লিকেশন দিয়ে আমরা সহজেই সব ধরনের ডকুমেন্ট অনেক সুন্দর ভাবে তৈরি করতে পারি।

ms ওয়ার্ড এর কাজ শুধু ডকুমেন্ট তৈরির মাঝে সীমাবদ্ধ নয়। বরং, ডকুমেন্ট তৈরি, এডিট, সেভ সহ বানান এবং ব্যাকরণ ভুল হলে সেগুলো ঠিক করতেও মাইক্রোসফট ওয়ার্ড এপ্লিকেশন এর জুড়ি মেলা ভার। এই এপ্লিকেশন দিয়ে একটি ডকুমেন্ট ইচ্ছে মত ভাবে সাজানো সম্ভব। যেমন : লেখার ফন্ট ছোট বা বড় করা, লেখায় কালার যোগ করা, ফন্ট পরিবর্তন করা, লেখার মাঝে ছবি যোগ করা ইত্যাদি। এছাড়াও আরো অনেক কাজে ms word এগিয়ে রয়েছে। এগুলো নিচে উল্লেখ করে দিলাম।

  • আবেদনপত্র/দরখাস্ত/চিটিপত্র টাইপ এবং প্রিন্ট করা যায়।
  • যেকোন প্রকারের ডকুমেন্ট অথবা টেক্সট টাইপ করা যায়।
  • স্কুল-কলেজের প্রশ্নপত্র টাইপ এবং প্রিন্টের কাজ করা যায়।
  • দলিল টাইপ করা যায়।
  • শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট টাইপ করা যায়।
  • শিক্ষকরা ক্লাস তৈরি করতে পারবেন।
  • সীমিত আকারে ডিজাইনের কাজ করা সম্ভব।
  • প্রয়োজনীয় প্রজেক্ট ফাইল এবং প্রোফাইল তৈরি করা যায়।
  • ড্র, ড্রয়িং, ডায়াগ্রামসহ টেবিলের কাজ করা যায়।

মাইক্রোসফট ওয়ার্ড এর ব্যবহারসমূহ

মাইক্রোসফট ওয়ার্ড আমরা বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করতে পারি। অফিস এপ্লিকেশন হিসেবে এই প্রোগ্রাম দিয়ে নানা ধরণের কাজ অনেক সহজেই এবং সুন্দর ভাবে সম্পন্ন করা যায়। নিম্নে ms word এর কিছু বিশেষ ব্যবহার উল্লেখ করে দিলাম।

  1. ডকুমেন্ট তৈরি
  2. সিভি ও রেজুমি তৈরি
  3. আয়ের উপায়
  4. সুন্দর লেকচার শিট তৈরি
  5. আর্টিকল লেখা
  6. পোস্টার ও কার্ড তৈরি

উপরোক্ত সকল কাজ অনেক সহজেই এবং দ্রুত প্রফেশনাল ভাবে এম এস ওয়ার্ড দিয়ে করা যায়। তো চলুন, এগুলো নিয়ে আরেকটু বিস্তারিত আলোচনা করা যাক।

ডকুমেন্ট তৈরি করা

মাইক্রোসফট ওয়ার্ড দিয়ে অনেক সহজেই যেকোনো ধরণের ডকুমেন্ট তৈরি, ডকুমেন্ট ফরম্যাটিং, কালার যুক্ত করা সহ বিভিন্ন কাজ করা যায়। একটি সফটওয়্যার দিয়ে সব ধরণের কাজ সম্পন্ন করা যায়। প্রশ্নপত্র তৈরি, বিজ্ঞাপন তৈরি, লিফলেট তৈরি, চিঠি বা দরখাস্ত লেখা সহ বিভিন্ন কাজে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

আরও পড়ুন – কম্পিউটার ভাইরাস কি?কম্পিউটার ভাইরাস কত প্রকার

সিভি ও রেজুমি তৈরি

সিভি ও রেজুমি তৈরির জন্য মাইক্রোসফট ওয়ার্ড অনবদ্য। প্রায় সবাই-ই এ কাজে এক নামে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডকে চেনে। অনেক মাইক্রোসফট ওয়ার্ড টেম্পলেটও পাওয়া যায় যা দিয়ে কাজ হয়ে যাবে।

মাইক্রোসফট ওয়ার্ড দিয়ে টাকা আয়

মাইক্রোসফট অফিস এপ্লিকেশন এর মাঝে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রোগ্রাম। এটি শিখলে শুধু নিজের কাজেই দিবে না, বরং এটি দিয়ে আপনি অন্যের কাজ করে দিয়ে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এছাড়াও, মাইক্রোসফট ওয়ার্ড জানা থাকলে যেকোনো চাকরির ক্ষেত্রে প্রাধান্য পাবেন।

লেকচার শিট বা নোট তৈরি করা

স্কুল, কলেজ বা ভার্সিটিতে লেকচার শিট বা নোট প্রতিনিয়তই প্রয়োজন হয়। আপনিও হয়তো বন্ধুদের কাছে থেকে বা কোনো কম্পিউটারের দোকান থেকে বিভিন্ন নোট সংগ্রহ করেছেন। আপনি কি জানেন, লেকচার শিট বা নোটগুলো কিভাবে তৈরি করা হয়। এসব তৈরি করার জন্য কম্পিউটারে ms word এপ্লিকেশন ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এই এপ্লিকেশনে এতো বেশি ফিচার আছে যে, আপনি চাইলে যেকোনো ভাবে আপনার ইচ্ছে মতো ডকুমেন্ট তৈরি ও ফরম্যাটিং করতে পারবেন।

আর্টিকেল লেখার কাজে ব্যবহার

লেখালেখি করতে ভালো লাগে? আগে তো লেখালেখি করার জন্য খাতা-কলম ব্যবহার করতে হতো। এখন অনেকেই শখের বসে লেখালেখি করার জন্য কম্পিউটার ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আপনিও চাইলে কম্পিউটারে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড এপ্লিকেশন দিয়ে লেখালেখির কাজ শুরু করে দিতে পারেন। এই এপ্লিকেশনে ইউজার ফ্রেন্ডলী ইন্টারফেস সহ সব ধরণের টুল পেয়ে যাবেন, যা দিয়ে আপনি সাচ্ছন্দে লেখালেখি করতে পারবেন।

MS WORD কি এবং MS WORD এর কাজ কি তা নিয়ে নিশ্চয়ই আর সন্দেহ নেই। উপরে আমি মাইক্রোসফট ওয়ার্ড নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করেছি। আশা করছি পোস্টটি এখন অব্দি পড়ে থাকলে আপনি অফিস এপ্লিকেশনে এর ওয়ার্ড এপ্লিকেশন সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন।

MS WORD – FAQ

এমএস ওয়ার্ড এর কাজ কি?

কম্পিউটার দিয়ে বিভিন্ন ডকুমেন্ট তৈরি, টাইপিং এর কাজ, চিঠি বা আবেদন পত্র তৈরি করা, দলিল লেখা, প্রশ্নপত্র তৈরি করা, প্রবন্ধ লেখা সহ বিভিন্ন রিপোর্ট লেখার কাজে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

Ms word এর প্রয়োজনীয়তা কি?

MS WORD এর বিভিন্ন প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। যেকোনো চাকরির ক্ষেত্রে এমএস ওয়ার্ড জানা থাকলে প্রাধান্য পাওয়া যায়। একটি প্রতিষ্ঠান এর জন্য বিভিন্ন কাজে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ব্যবহার করা হয়ে থাকে। যেকোনো ধরণের ডকুমেন্ট তৈরি, সিভি তৈরি, চিঠি বা আবেদন পত্র লেখা, সহ বিভিন্ন কাজে এই এপ্লিকেশন ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

এমএস ওয়ার্ড কি ধরনের সফটওয়্যার?

এমএস ওয়ার্ড অফিস এপ্লিকেশন সফটওয়্যার। এই সফটওয়্যার দিয়ে অফিসের বিভিন্ন কাজ যেমন – ডকুমেন্ট তৈরি, ডকুমেন্ট সেভ, এডিট এবং ওয়ার্ড প্রসেসিং এর কাজ করা হয়ে থাকে।

আমাদের শেষ কথা

আজকের এই পোস্টে আপনাদের সাথে MS WORD কি এবং MS WORD এর কাজ কি এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আশা করছি এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়েছেন। পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ে থাকলে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড এর কাজ এবং বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা পাওয়া কথা। তো আজকের এই পোস্ট এখানেই শেষ করছি।