রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম

বর্তমানে বিকাশ এবং নগদ বাংলাদেশে জনপ্রিয় মোবাইল ব্যাংকিং সেবা হলেও প্রথমে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা বাংলাদেশে চালু করেছিলো ডাচ বাংলা ব্যাংক এর সেবা রকেট। রকেতের রয়েছে এটিএম বুথ, কম খরচ, বিদেশ থেকে রেমিটেন্স নিয়ে আসার সুযোগ সহ অন্যান্য সুবিধা। যার কারণে রকেট বিকাশ, নগদ এর মতো অনেক বেশি জনপ্রিয়। তবে, রকেট এর গ্রাহক সংখ্যা কোনো এক অজানা কারণে বিকাশ, নগদ এর থেকে কম। তবু কিন্তু রকেটে নেই কোনো সুবিধা কমতি। অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিং সেবার থেকে রকেটে অনেক কম চার্জ দিয়ে টাকা ক্যাশ আউট করা যায়। 

রকেট ক্যাশ ইন চার্জ ফ্রি, রকেটে সেন্ড মানি চার্জ ফ্রি, রকেট এটিএম বুথ থেকে ক্যাশ আউট চার্জ হাজারে ৯.০ টাকা, এজেন্ট পয়েন্ট থেকে রকেট ক্যাশ আউট চার্জ ১৬.৭ টাকা। বিদ্যুৎ বিল, গ্যাস বিল, ইন্টারনেট বিল সহ অন্যান্য বিল পেমেন্ট করার সুবিধা, বিদেশ থেকে রেমিটেন্স আনার সুযোগ, ব্যাংক ও কার্ড থেকে টাকা আনতে পারবেন, কেনাকাটা করে পেমেন্ট করার সুবিধা। এমন আরও অনেক সুবিধা রয়েছে রকেট এ। তো চলুন রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম দেখে নেয়া যাক।

রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম [year]

রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম
রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম

আপনি যদি একটি রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম জানতে চান, তবে নিম্নোক্ত তিনটি উপায়ে একটি রকেট একাউন্ট খুলতে পারবেন। এগুলো হচ্ছে : 

  1. ঘরে বসে রকেট অ্যাপ দিয়ে একাউন্ট তৈরি
  2. এজেন্ট পয়েন্ট থেকে রকেট একাউন্ট তৈরি
  3. *322 # কোড ডায়াল করে রকেট অ্যাকাউন্ট তৈরি

আজকের এই পোস্টে আমি আপনাদের সাথে প্রথম দুইটি রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম, অর্থাৎ ঘরে বসে রকেট অ্যাপ দিয়ে একাউন্ট তৈরি করার নিয়ম এবং এজেন্ট পয়েন্ট থেকে রকেট একাউন্ট তৈরি করার নিয়ম নিয়ে আলোচনা করবো। তৃতীয় পদ্ধতি অনুসরণ করে আপনি রকেট একাউন্ট খুলতে পারবেন, কিন্তু এজন্য অর্ধেক কাজ নিজে করে বাকি কাজ করার জন্য ডাচ বাংলা ব্যাংক এজেন্ট পয়েন্ট যেতে হবে। তাই, আজকে উপরোক্ত দুইটি বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো। 

আরো পড়ুনঃ নগদ একাউন্ট কিভাবে খুলতে হয় [yrear]

রকেট একাউন্ট খুলতে কি কি লাগে?

ঘরে বসে একটি রকেট একাউন্ট তৈরি করার জন্য আপনার একটি স্মার্টফোন, ন্যাশনাল আইডি কার্ড, এবং একটিভ সিম প্রয়োজন হবে। কিন্তু আপনি যদি এজেন্ট পয়েন্ট থেকে রকেট একাউন্ট তৈরি করতে চান এজন্য আপনার প্রয়োজন হবে দুইকপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি, ভোটার আইডি কার্ড (মূল কপি), ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি, এবং একটি এক্টিভ সিম প্রয়োজন।

ঘরে বসে রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম

ঘরে বসে একটি রকেট একাউন্ট খুলতে হলে আপনাকে গুগল প্লে স্টোর কিংবা অ্যাপ স্টোর থেকে রকেট অ্যাপ ইন্সটল করে নিতে হবে। এজন্য প্রথমেই আপনার ফোনের প্লে স্টোর কিংবা অ্যাপ স্টোর ওপেন করবেন। এরপর, Rocket লিখে সার্চ দিলে ডাচ বাংলা ব্যাংক এর রকেট অ্যাপ পেয়ে যাবেন। এটি ইন্সটল করে নিবেন। ইন্সটল করার পর যা যা করতে হবে এগুলো নিয়ে নিচে বিস্তারিত আলোচনা করছি।

১। ভাষা সিলেক্ট করুন: অ্যাপ ওপেন করার পর আপনাকে ভাষা নির্বাচন করতে বলবে। এখানে আপনি যে ভাষায় রকেট একাউন্ট ব্যবহার করতে চান, সে ভাষা নির্বাচন করে দিবেন। 

২। নাম্বার লিখুন: এ ধাপে আপনি যে নাম্বারে রকেট একাউন্ট খুলতে চান, সে নাম্বারটি দিবেন। তারপর আপনার নাম্বারে কল এবং ম্যাসেজ দেয়ার জন্য পারমিশন চাইবে, এলাও করে দিবেন। তারপর পরবর্তী ধাপে যাবেন।

৩। পারমিশন দিন: এ ধাপে আপনার সামনে একটি লেখা আসবে। লেখাটি কিছুটা এমন You are not registered to mobile Banking… । অর্থাৎ, আপনার দেয়া নাম্বারে কোনো রকেট একাউন্ট নেই। আপনি যদি এই নাম্বারে একটি রকেট একাউন্ট খুলতে চান, তবে হ্যাঁ বাটনে ক্লিক করে পরবর্তী ধাপে যাবেন। 

৪। অপারেটর নির্বাচন: হ্যাঁ বাটনে ক্লিক করার পর আপনার দেয়া নাম্বারটি দেখাবে। এখন আপনাকে আপনার সিমের নাম্বার যে অপারেটর এর, সেটি নির্বাচন করে দিতে হবে। গ্রামীণফোন/বাংলালিংক/রবি/এয়ারটেল/টেলিটক যে মোবাইল অপারেটর এর সিম ব্যবহার করছেন, সেই সিলেক্ট করে দিবেন। তারপর পরবর্তী ধাপে যাবেন।

৫। পিন লিখুন: এখন আপনার কাছে একটি কল আসবে। সেই রিসিভ করলে একটি পিন নাম্বার পাবেন। এই পিন নাম্বারটি মনে রাখুন কিংবা কোথাও লিখে রাখুন। 

আরো পড়ুনঃ ঘরে বসে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম [year]

৬। সিকিউরিটি কোড এবং পিন: কল কেটে গেলে ম্যাসেজে কিছু সিকিউরিটি কোড পাবেন। এগুলো রকেট অ্যাপ এর সিকিউরিটি কোড অপশনে পেস্ট করে দিবেন। তারপর, সিকিউরিটি কোড অপশনের নিচে পিন নাম্বার এর অপশন পাবেন, সেখানে কল থেকে পাওয়া ৪ ডিজিট এর পিন নাম্বারটি দিবেন। অতঃপর, Verify বাটনে ক্লিক করবেন। 

এখন, আপনার লোকেশন এক্সেস চাইবে, Allow বাটনে ক্লিক করে সামনে যান।এবার পুনরায় কল থেকে পাওয়া পিন নাম্বারটি দিয়ে লগ ইন বাটনে ক্লিক করতে হবে

৭। জাতীয় পরিচয় পত্র সাবমিট: অ্যাপ এ লগিন করার পর Update Your KYC নামে একটি অপশন পাবেন। সেখানে ক্লিক করুন। এ ধাপে আপনাকে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের সামন এবং পিছনের দিকের ছবি তুলে জমা দিতে হবে। Update Your KYC বাটনে ক্লিক করার পর কিছু শর্ত দেখতে পাবেন, এগুলো পড়তে পারেন। নয়তো, এলাও করে দিবেন। এরপর আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের সামন দিকের এমন পিছন দিকের ছবি তুলে দিবেন।

ছবি তুলে সাবমিট দেয়ার পর আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র অনুযায়ী আপনার তথ্য দেখাবে। সব তথ্য যাচাই করে দেখবেন কোনো ভুল আছে কি না। যদি সব তথ্য ঠিক থাকে, তবে Next বাটনে ক্লিক করবেন।

৮। ব্যক্তিগত তথ্য: এ ধাপে আসার পর আপনার কাছে কিছু তথ্য জানতে চাইবে। আপনি একজন পুরুষ নাকি স্ত্রী, বিবাহিত নাকি অবিবাহিত, ধর্ম, পেশা এবং কি কাজে রকেট একাউন্ট ব্যবহার করবেন এসব তথ্য পূরণ করে দিবেন। তারপর Next বাটনে ক্লিক করবেন।

৯। ছবি তুলুন: রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম এর এ ধাপে আপনাকে যে ব্যক্তির এনআইডি দিয়ে রকেট একাউন্ট খুলছেন, তার ছবি তুলতে হবে। আপনার এনআইডি হলে আপনার ছবি তুলবেন। ছবি তোলা সম্পন্ন হলে রকেট কাস্টমার তথ্য ফরম পাবেন, যেখানে আপনার যাবতীয় তথ্য ছবিসহ দেখতে পারবেন।

রকেট একাউন্ট খোলার নিয়মের উপরোক্ত ধাপগুলো অনুসরণ করলে আপনার একাউন্ট রিভিউ এ চলে যাবে। এ ধাপে আপনাকে কিছুক্ষন সময় অপেক্ষা করতে হবে। রকেট থেকে আপনার দেয়া সকল তথ্য যাচাই করে দেখবে। সব তথ্য ঠিক থাকলে আপনার রকেট একাউন্ট একটিভ করে দিবে। রকেট একাউন্ট একটিভ হয়ে গেলে Your Rocket Account has been approved ম্যাসেজ পাবেন। অর্থ হচ্ছে আপনার রকেট একাউন্ট একটিভ হয়ে গেছে। রকেট একাউন্ট সফলভাবে একটিভ হলে আপনি আপনার রকেট একাউন্ট এর মেইন ব্যালেন্স এ ২৫ টাকা বোনাস পাবেন। 

আমাদের শেষ কথা

আজকের এই পোস্টে আমি আপনাদের সাথে রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আশা করছি রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম [year] নিয়ে আপনার মনে আর কোনো প্রশ্ন নেই। রকেট একাউন্ট নিয়ে আর কোনো প্রশ্ন থাকলে অবশ্যই মন্তব্য করবেন। আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। দেখা হবে পরবর্তী পোস্টে ইনশা আল্লাহ। আল্লাহ হাফেয। 

Leave a Comment