ল্যাপটপ কি? ভালো ল্যাপটপ চেনার উপায়?

ল্যাপটপ কি বা ল্যাপটপ কাকে বলে? 

ল্যাপটপ শব্দের অর্থ ল্যাপ শব্দের অর্থ হলো কোল আর টপ শব্দের অর্থ হলো উপর। অর্থাৎ কোলের উপরে ব্যবহারযোগ্য ডেক্সটপ কম্পিউটারের বিকশিত রুপ যা আকারে ডেক্সটপ কম্পিউটার থেকে অনেক ছোট এবং সহজে পরিবহন যোগ্য কম্পিউটার কে ল্যাপটপ বলে। ল্যাপটপ হলো ছোট ব্যক্তিগত কম্পিউটার যেটি সহজে স্কুল-কলেজ, অফিস আদালত, যানবাহন এমনকি বিমানেও ব্যবহার করা যায়। 

এছাড়াও এটিকে নোটবুক কম্পিউটার ও বলা হয়ে থাকে কারণ এটি নোটবুক এর ন্যায় ছোট এবং ভাজ করে রাখা যায়।  সাধারণত ল্যাপটপ এর ২টি অংশ থাকে।  একটি হলো মনিটর অন্য অংশ হলো কিবোর্ড টাচপ্যাড সম্বলিত অন্যান্য অংশগুলি।

ল্যাপটপ কি ল্যাপটপ দিয়ে কি কি কাজ করা যায়

সাধারণত ল্যাপটপ দিয়ে ডেক্সটপ এর ন্যায় সকল কাজ করা যায়।  ল্যাপটপ ও ডেক্সটপ এর মধ্যে প্রধান পার্থক্য হলো আকারগত। যদিও এদের কাজের গতি ও ফলাফলে পার্থক্য রয়েছে। ল্যাপটপ দিয়ে প্রধানত যে কাজ গুলো করা যায় তা নিচে উল্লেখ করা হলোঃ

=> ল্যাপটপের মাধ্যমে টেক্সট  ডকুমেন্ট নিয়ে কাজ করা যায়। 

=> ল্যাপটপের মাধ্যমে অডিও ও ভিডিও এডিটিং করা যায়।

=> ল্যাপটপের মাধ্যমে স্প্রেডশিট এর মাধ্যমে কাজ করা যায়। 

=> ল্যাপটপের মাধ্যমে গেম খেলা যায়।

=> ল্যাপটপের মাধ্যমে ফটোশপ দিয়ে ছবি  এডিটিং ছাড়াও গ্রাফিক ডিজাইনের বিভিন্ন কাজ করা যায়। 

=> ল্যাপটপের মাধ্যমে অ্যাপস ডেভলপমেন্ট, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট এবং ওয়েব ডেভলপমেন্টের কাজ করা যায়।

এছাড়াও ল্যপটপ দিয়ে ডেক্সটপ কম্পিউটার এর ন্যায় নানাবিধ কার্য সাধন করা যায়। 

ভালো ল্যাপটপ চেনার উপায়? 

ল্যাপটপ ক্রয় করার আগে আমাদের সকলের জানা উচিত একটি ভালো মানের ল্যাপটপের গঠনগত বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে।  তো চলুন দেখে যাক ভালো মানের ল্যাপটপ চেনার কিছু উপায়ঃ

=> দেখতে হবে ল্যাপটপ এ লেটেস্ট ভার্সন ইউন্ডোজ সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে কি না। বর্তমানে লেটেস্ট ভার্সন ইউন্ডোজ হলো ইউন্ডোজ ১১ বা ইউন্ডোজ ১০। 

=> ল্যাপটপ এর ভিডিও কোয়ালিটি যাতে ভালো হয় তার জন্য ভিজিএ কার্ডের উন্নত ভার্সন ব্যবহার করা হয়েছে কি না চেক করে নিতে হবে।  যদি ভিজিএ কার্ড উন্নত না হয় তাহলে গেম বা ভিডিও দেখে মজা পাওয়া যাবে না। 

=> ল্যাপটপ এর একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো মনিটর।  মনিটর কত সাইজের হবে তা নির্ভর করে ব্যবহার কারীর চাহিদার উপর।  তবে চৌদ্দ বা পনের ইঞ্চি সাইজের মনিটর বেশি ব্যবহৃত হয়। 

=> ল্যাপটপ এর একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ পার্ট হলো র‍্যাম।  র‍্যাম বেশি না হলে ল্যাপটপ স্লো চলবে এবং প্রায়ই হ্যাং করে থাকবে। তাই ল্যাপটপ স্মুথলি চালানোর জন্য র‍্যাম বেশি দেখে কেনা উচিত।

=> ল্যাপটপ এর প্রধান বৈশিষ্ট্য হলো এটি এসি কারেন্ট এ চলবে অর্থাৎ ব্যাটারিতে চলবে। তাই ব্যাটারির কার্যক্ষমতা মিনিমাম ৭-৮ ঘন্টা হওয়া বাঞ্ছনীয়। 

=>  ল্যাপটপ এর মাদারবোর্ড ও প্রসেসর এর মান যাচাই-বাছাই পূর্বক ক্রয় করা উচিত।

=> ল্যাপটপ এর টাচ প্যাড এবং কি বোর্ড চেক করে নিতে হবে।  কি বোর্ডের সব কি কাজ করে কি না দেখে নিতে হবে। 

=>  সর্বোপরি একটি ব্রান্ডের ল্যাপটপ ক্রয় করা উচিত। একটি ভালো মানের কোম্পানির ল্যাপটপ টেনশন ফ্রী ব্যবহার করা যায়। যেমনঃ ডেল, এইচ পি, এসার, লেনেভো, আসুস ইত্যাদি।

ল্যাপটপ ব্যবহারের সঠিক নিয়ম

ল্যাপটপ ব্যবহারের ব্যাপক সুবিধার জন্য ল্যাপটপ এর চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলেছে।ল্যাপটপ ব্যবহারের সঠিক নিয়ম না জানার ফলে অনেক সময় ল্যাপটপ থেকে প্রত্যাশিত সার্ভিস পাওয়া যায় না অথবা অকালেই ল্যাপটপ নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়। তাই সঠিকভাবে ল্যাপটপ ব্যবহারের নিয়মগুলো তুলে ধরা হলোঃ

সব ধরণের দরখাস্ত লেখার নিয়ম

=> ল্যাপটপ এর একটি বড় সুবিধা হলো এটি বিদ্যুৎ চলে গেলেও ব্যাটারির সাহায্যে চালানো যায়। তাই ব্যাটারির প্রতি সর্বদা যত্নশীল হতে হবে। ব্যাটারির সাহায্যে ল্যাপটপ চালানোর প্রয়োজন না থাকলেও মাঝে মাঝে ব্যাটারির সাহায্যে ল্যাপটপ চালাতে হবে তাহলে ব্যাটারির আয়ুস্কাল বজায় থাকবে।

=>  মাঝে মাঝে ব্যাটারির কানেক্টর চেক করতে হবে এবং ব্যাটারি দিয়ে ল্যাপটপ চালানোর সময় স্ক্রিনের ব্রাইটনেস কমিয়ে দিন তাহলে দীর্ঘক্ষন ব্যাটারির চার্জ বজায় থাকবে।

=> ল্যাপটপ বা কম্পিউটার এর প্রধান শত্রু ভাইরাস। তাই ভালো মানের এন্ট্রি ভাইরাস ব্যবহার করা উচিত। তাহলে ল্যাপটপের কার্যক্ষমতা ঠিক মতো বজায় থাকবে।

=> অনেক সময় দ্রুত কাজের প্রয়োজনে অকাধিক উইন্ডো খুলে রাখতে হয়। তবে দরকারী উইন্ডোগুলো ছাড়া বাকী উইন্ডোগুলো মিনিমাইজ করে রাখা উচিত তাহলে ল্যপটপ এর কাজের গতি বজায় থাকবে। 

=> মুভি বা গান হার্ডডিক্স থেকে দেখুন কারন সিডি বা ডিভিডি থেকে দেখলে ল্যাপটপের র‍্যাম এর উপর চাপ পড়ে ফলে ল্যাপটপ স্লো হয়ে যায়। 

=> ল্যাপটপ ব্যবহারের সময় এমন ভাবে স্থাপন করতে হবে যাতে ল্যাপটপের কুলিং ফ্যানের বাতাস স্মুথলি বাইরে যেতে পারে। কারন কুলিং  ফ্যান ভালো ভালে না চললে ল্যাপটপ বন্ধ হয়ে যাবে। 

=> ল্যাপটপ ব্যবহারের সময় সূর্যের আলো যাতে স্ক্রীনের উপর না পড়ে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

=> ল্যাপটপ ভালো রাখতে হলে বুলুটুথ ও ওয়াইফাই কানেকশন বন্ধ রাখুন। 

=> হার্ডডিস্ক ও সিপিইউ-এর মেইনটেন্যান্সে কোনো কাজ করা যাবে না। তাতে ভালোর থেকে খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। 

=> অপ্রয়োজনীয় প্রোগ্রামগুলো বন্ধ রাখাই ভালো। এছাড়াও আপাতত দরকার নেই এমন প্রোগ্রাম আনইনস্টল করুন।

=> মেমোরি ক্লিনের জন্য মাঝে মাঝে Ram Cleaner, Ram Optimizer, Mem Monster, Free Up Ram, Super Ram নিয়মানুযায়ী ফ্রাগমেন্ট করুন।

=> ল্যাপটপ শাট ডাউনের পরিবর্তে হাইবারনেট অপশন ব্যবহার করা ভালো। 

পরিশেষে বলা যায় যে ল্যাপটপ এর উপযোগিতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। প্রযুক্তির উতকর্ষ সাধনের জন্য এর চাহিদা উত্তর উত্তর আরও বৃদ্ধি পাবে বলে অনুমেয়।  তাই আজকের পোস্টে ল্যাপটপ কি এবং ভালো ল্যাপটপ চেনার উপায় নিয়ে আলোচনা করলাম। আশা করি  আপনারা বিষয়টি সম্পর্কে সম্যক ধারণা পেয়েছেন। 

আরও পড়ুন : ডাটাবেজ কি? ডাটাবেজ এর কাজ কি?

Leave a Comment