কম্পিউটারের জনক কে?আধুনিক কম্পিউটারের জনক কে?

কম্পিউটারের জনক কে

হাওয়ার্ড অ্যাইকন হচ্ছেন কম্পিউটার এর জনক কারণ তিনি সর্বপ্রথম কম্পিউটার আবিষ্কার করেছিলেন। পরবর্তীতে চার্লস ব্যাবেজ  যিনি ১৮১০ সালে প্রথম যান্ত্রিক উপায় ব্যবহার করে সংখ্যা ও সারণী গণনা করার মাধ্যমে  কম্পিউটারের আধুনিক ভার্সন তৈরি করেন বিধায় আধুনিক কম্পিউটারের জনক হিসাবে চার্লস ব্যবেজ কেই স্বীকৃতি দেয়া হয়।

কম্পিউটারের-জনক-কে-কেন-তাকে-জনক-বলা-হয়
কম্পিউটারের জনক কে কেন তাকে জনক বলা হয়

আধুনিক কম্পিউটারের জনক কে? তিনি কোন দেশের নাগরিক? 

আধুনিক কম্পিউটারের জনক হলো বিজ্ঞানী চার্লজ ব্যাবেজ । তিনি সর্বপ্রথম ১৮১০ সালে যান্ত্রিক উপায়ের মাধ্যমে সংখ্যা ও সারণী গণনা করার জন্য একটি যন্ত্র আবিষ্কারের বিষয় চিন্তা করেন। পরবর্তীতে তিনি ১৮৩০ সালে তার কল্পিত যন্ত্রটি আবিষ্কার করেন। সেই সময় তার আবিস্কারিত যন্ত্রটি  কোন প্রকার বুদ্ধিমত্তা ছাড়া শুধু মাত্র গণনার কাজ করতে পারত। মূলত তার আবিস্কারিত যন্ত্রটিকেই আধুনিক কম্পিউটরের প্রথম সংস্করণ হিসেবে গণ্য করা হয় । কিন্তু তার আর্থিক সামার্থ না থাকায় তিনি এই যন্ত্রটি পরিপূর্ণ  ভাবে তৈরি করে যেতে পারে নি। তার আবিষ্কারকৃত যন্ত্রটি অনেকটা আধুনিক কম্পিউটার এর সাথে মিলে যায় বিধায় তাকে আধুনিক কম্পিউটারের জনক হিসেবে গন্য করা হয়।

চার্লস ব্যাবেজ একজন ইংরেজ যন্ত্র প্রকৌশলী, গণিতবিদ, আবিষ্কারক ও দার্শনিক। যিনি ২৬শে ডিসেম্বর, ১৭৯১ সালে জন্ম গ্রহন করেন এবং ১৮ই অক্টোবর, ১৮৭১ মৃত্যু বরন করেন। চার্লস ব্যাবেজ ছিলেন একজন ব্রিটিশ নাগরিক।

চার্লস ব্যাবেজ কে কেন কম্পিউটারের জনক বলা হয়

১৮২২ সালে ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিতের অধ্যাপক চার্লস ব্যাবেজ যার ইংরেজী নাম Charles Babbage গণিত বিষয়ক হিসাবের নিমিত্তে উন্নত ধরনের ডিফারেন্স ইঞ্জিন তৈরির আংশিক কাজ করেন। কিন্তু অধিক পরিমাণ যান্ত্রিক সরঞ্জাম নিখুঁতভাবে তৈরি করা সম্ভব না হওয়ায় ডিফারেন্স ইঞ্জিনের চেষ্টা ব্যর্থ হয়।  তারপর  ১৮৩৩ সালে তিনি অ্যানালিটিক্যাল ইঞ্জিন নামক যান্ত্রিক কম্পিউটার তৈরির প্লান করেন এবং ইঞ্জিনের নকশা তৈরি করেন।

সহজেই ঘরে বসে কম্পিউটার শিখার পদ্ধতি – জানতে পারেন।

কিন্তু তাঁর যন্ত্র তৈরি করতে দেরি হওয়ায় সরকার ১৭০০০ পাউন্ড ব্যয় করার পর এই প্রকল্পে অর্থ বরাদ্ধ বন্ধ করে দেয়। চার্লস ব্যাবেজের বাবা ছিলেন স্বচ্ছল ব্যবসায়ী । তার বাবার মৃত্যুর পর  চার্লস ব্যাবেজে উত্তরাধিকার সূত্রে বাবার সম্পত্তির মালিক হন এবং তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত নিজ করচে এই প্রকল্পে গবেষণা চালিয়ে যান। ব্যাবেজের অ্যাালিটিক্যাল ইঞ্জিন তৈরির পরিকল্পনায় আধুনিক কম্পিউটারের ধারণা বদ্ধমূল ছিল বিধায় চার্লস ব্যাবেজকে আধুনিক কম্পিউটারের জনক বলা হয়ে থাকে।

ডিজিটাল কম্পিউটারের জনক কে

জন ভন নিউম্যান- একজন হাঙ্গেরীয় বংশদূত ও মার্কিন গণিতবিদ ছিলেন। তাকে ডিজিটাল কম্পিউটারের জনক বলা হয়। জন ভন নিউম্যান কোয়ান্টাম বলবিদ্যায় অপারেটর তত্ত্ব ব্যবহারের অগ্রদূত সেটতত্ত্ব, জ্যামিতি, প্রবাহী গতিবিদ্যা, অর্থনীতি, যোগাশ্রয়ী প্রোগ্রামিং, কম্পিউটার বিজ্ঞান, পরিসংখ্যান সহ আরো অনেক ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রেখেছেন। তার এই অসামান্য অবদানের জন্য আধুনিক কম্পিউটারের মূল স্থাপত্যকে তাঁর নাম অনুসারে ভন নিউম্যান স্থাপত্য বলা হয়ে থাকে।

সুপার কম্পিউটারের জনক কে

কন্ট্রোল ড্যাটা কর্পোরেশন (সিডিসি) এর সেইমার ক্রে  ১৯৬০ সালের দিকে সর্বপ্রথম  সুপার কম্পিউটারের একটি ডিজাইন তৈরি করেন এবং তা পৃথিবীর সামনে তুলে ধরেন।  তাই সেইমার ক্রে হচ্ছেন সুপার কম্পিউটারের জনক।

শেষ কথা

পরিশেষে বলা যায়, আজকের পোষ্টটিতে  ”কম্পিউটারের জনক কে কেন তাকে জনক বলা হয়” এই বিষয়টি নিয়ে বিশদভাবে আলোচনা করা হয়েছে। আশা করি আজকের পোষ্টটি সম্পর্কে ভালো ধারনা লাভ করেছেন। তারপরও যদি কোন বিষয়ে জানার আগ্রহ থাকে তাহলে কমেন্ট বক্সে লিখতে পারেন আমরা চেষ্টা করবো বিষয়টি নিয়ে আলোকপাত করতে।

আরও জানতে পড়ুনঃ কম্পিউটার কাকে বলে

Leave a Comment