মাসে ৩০ হাজার টাকা আয় করার উপায়

প্রতি মাসে ৩০ হাজার টাকা আয় করতে চান? মাসে ৩০ হাজার টাকা ইনকাম করার অনেক উপায় রয়েছে। আপনি যদি সঠিক উপায় বেঁছে নেই, তবে ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমে প্রতি মাসে ৩০ হাজার টাকা থেকে শুরু এর এর অধিক অব্দি ইনকাম করতে পারবেন। আজকের এই পোস্টে আপনাদের সাথে আলোচনা করবো, কীভাবে প্রতি মাসে ৩০ হাজার টাকা থেকে শুরু এর লক্ষ টাকা অব্দি ইনকাম করা যায়। তো চলুন, শুরু করা যাক।

প্রতি মাসে ৩০ হাজার টাকা আয় করা অনেকের কাছে স্বপ্ন। আবার, অনেকেই প্রতি মাসে লক্ষাধিক টাকা উপার্জন করতেছে। তাদের কাছে ৩০ হাজার টাকা তেমন কিছুই নয়। আপনি বা আমি যদি প্রতি মাসে ৩০ হাজার টাকা ইনকাম করতে চাই, তবে অবশ্যই আমাদের সঠিক পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে। এই পোস্টে এমন কিছু মাধ্যম নিয়ে আলোচনা করবো, যেগুলো অনুসরণ করে কাজ করতে পারলে, প্রতি মাসে ত্রিশ হাজার টাকার অধিক ইনকাম করতে পারবেন।

মাসে ৩০ হাজার টাকা আয়

মাসে ৩০ হাজার টাকা আয়
মাসে ৩০ হাজার টাকা আয়

অনলাইনে ইনকাম করতে যেয়ে অনেকেই ধোঁকা খায়। এর মূল কারণ হচ্ছে, সঠিক পদ্ধতি বেঁছে না নিতে পারা এবং স্ক্যামারের খপ্পড়ে পরা। আমাদের একটা কথা মাথায় রাখতে হবে, অনলাইন থেকে ইনকাম করি কিংবা শারীরিকভাবে কসরত করে ইনকাম করি, দুই পদ্ধতিতেই ইনকাম করতে চাইলে আমাদের দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। লোভনীয় অফার দেখে অল্প সময়ে অধিক ইনকাম করার স্বপ্ন দেখলে ঠকার সম্ভাবনা সবথেকে বেশি।

তাই, অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করতে চাইলে, আপনাকে অবশ্যই যেকোনো একটি সেক্টরে দক্ষ হতে হবে। কোনো কাজে দক্ষ হতে পারলে সেই সেক্টর থেকে টাকা উপার্জন করা থেকে কেউ আপনাকে বিরত রাখতে পারবে না। আপনি যদি কোনো একটি প্রতিষ্ঠান তৈরি করেন, অবশ্যই চাইবেন সেখানে দক্ষ কর্মী কাজ করুক। কারণ, অদক্ষ কর্মী দিয়ে কাজ করালে লাভের তুলনায় লোকসান হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

আরও পড়ুন – প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করার উপায়

ঠিক একইভাবে সবাই চায় দক্ষ মানুষ। অনলাইন থেকে মাসে ৩০ হাজার টাকা আয় করার জন্য আপনাকে অবশ্যই যেকোনো কাজে দক্ষ হতে হবে। এখন আমাকে প্রশ্ন করতে পারেন, কোন কাজে দক্ষতা অর্জন করবো? অনলাইন থেকে ইনকাম করার জন্য প্রতিদিন নতুন নতুন সেক্টর তৈরি হচ্ছে। আপনাকে বেঁছে নিতে হবে, কোন সেক্টরে কাজ করতে আপনি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। সেই সেক্টরে কাজ শিখে দক্ষতা অর্জন করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

তো চলুন, প্রতি মাসে ৩০ হাজার টাকা ইনকাম করার মাধ্যমগুলো কী কী দেখে নেয়া যাক।

মাসে ৩০ হাজার টাকা আয় করার উপায় –

  • এসইও শিখে টাকা ইনকাম
  • ভিডিও এডিটিং করে আয়
  • ইমেইল মার্কেটিং করে টাকা ইনকাম
  • অনলাইন সার্ভে করে আয়

উপরে যেসব বিষয় উল্লেখ কর দিয়েছি, সেগুলো থেকে প্রতি মাসে নিম্ন ৩০ হাজার টাকা থেকে শুরু এর অধিক পরিমাণে টাকা উপার্জন করতে পারবেন। এসব পদ্ধতিতে ইনকাম করতে চাইলে প্রথমে আমাদেরকে এই কাজগুলো শিখতে এবং দক্ষ হতে হবে। শুধু চাকরির বাজার নয়, অনলাইনে ইনকাম করার ক্ষেত্রেও অনেক প্রতিযোগিতা রয়েছে। প্রতিযোগিতায় সবার প্রথমে থাকতে হলে কাজে দক্ষ হতে হবে। তো চলুন, উপরোক্ত পদ্ধতিগুলো নিয়ে আরেকটু বিস্তারিত আলোচনা করা যাক।

আরও পড়ুন – মাসে ৫০ হাজার টাকা আয় করার উপায়

এসইও শিখে টাকা ইনকাম

একটি ওয়েবসাইট কিংবা ওয়েবপেজকে যেকোনো সার্চ ইঞ্জিনে সবার সামনে অর্থাৎ, একদম উপরের দিকে র‍্যাঙ্ক করানোর জন্য যেসব কাজ করা হয়, সেগুলোই হচ্ছে এসইও। এসইও এর পূর্ণরূপ হচ্ছে – সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন। আমরা তো প্রতিনিয়ত গুগল ব্যবহার করি। এখন যদি গুগলে গিয়ে সার্চ দেই, এসইও কি? তাহলে কিন্তু আমাদের সামনে কিছু রেজাল্ট শো করবে। প্রথম পাতায় কিছু রেজাল্ট, আবারও দ্বিতীয় পাতায় কিছু রেজাল্ট। এভাবে করে অনেক রেজাল্ট শো করবে। আমরা কিছু জানার জন্য গুগলে সার্চ দেয়ার পর প্রথমের দিকের ওয়েবসাইটে ক্লিক করে থাকি।

আরও পড়ুন – দৈনিক ১ হাজার টাকা ইনকাম করার উপায়

এসইও কি, এই বিষয়টি নিয়ে হাজার হাজার ওয়েবসাইট লেখালেখি করেছে। কিন্তু গুগল আমাদের সামনে প্রথম পেজে কয়েকটি ওয়েবসাইট কেনো দেখাচ্ছে? এবং যে ওয়েবসাইটগুলো আমাদের সামনে দেখাচ্ছে, এগুলোই বা কেনো দেখাচ্ছে? অন্য ওয়েবসাইট কেনো নয়? আসলে, যেসব ওয়েবসাইটের এসইও যত বেশি হবে, সেসব ওয়েবসাইট তত বেশি ভালো পজিশনে র‍্যাঙ্ক করবে। তাই, আমরা যদি আমাদের ওয়েবসাইট গুগল কিংবা অন্য সার্চ ইঞ্জিনের প্রথমের দিকে র‍্যাঙ্ক করাতে চাই, আমাদেরকে এসইও করতে হবে।

গুগলের বা অন্য সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম পাতায় শুরুর দিকে র‍্যাঙ্ক করার সুবিধা কি সেটা তো বুঝতেই পেরেছেন। আমরা যদি প্রথমের দিকে র‍্যাঙ্ক করি, তবে আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিটর বেশি আসবে। যত বেশি ভিজিটর, তত বেশি ইনকাম। এসইও শিখে টাকা ইনকাম করতে চাইলে আমাদেরকে ওয়েবসাইট এসইও করতে হবে। এসইও করে যদি আপনি আপনার ওয়েবসাইট র‍্যাঙ্ক করাতে পারেন, তবে সেই ওয়েবসাইটে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে কিংবা বিভিন্ন কোম্পানির এডস দেখিয়ে মাসে ৩০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

ভিডিও এডিটিং করে আয়

ইউটিউবে ভিডিও দেখেন না? কিংবা, সিনেমা হলে অথবা ওটিটি প্লাটফর্মে মুভি/নাটক দেখেন না? এসব কী এমনি এমনি তৈরি হয়? শুধু ভিডিও করলেই তো হয় না। ভিডিও করার পর সেই ভিডিও এডিট করতে হয়। যে কেউ চাইলে অনেক ভালো মানের ভিডিও এডিটিং করতে পারবে না। ভিডিও এডিটিং করতে হলে ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার সম্পর্কে জানতে হবে, ভিডিও এডিট করা জানতে হবে। 

তবেই, যেকোনো ভিডিও সুন্দর করে এডিট করা সম্ভব হবে। অনেকেই তাদের প্রতিষ্ঠান এর ভিডিও বা প্রেজেন্টেশন এডিট করার জন্য লোক নিয়োগ দিয়ে থাকে। আপনি যদি ভিডিও এডিটিং করতে পারেন এবং এই কাজে দক্ষ হয়ে উঠতে পারেন, তবে শুধুমাত্র ভিডিও এডিট করেই প্রতিটি ভিডিও এর জন্য ৫ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ১০/১৫ কিংবা এর বেশি ইনকাম করতে পারবেন। এখানে আমি যেটা বললাম, সেটা হচ্ছে শুধুমাত্র একটি ভিডিও এডিট করা। প্রতি মাসে আপনি কতটি ভিডিও এডিট করতে পারবেন! সবগুলো থেকে এমন ইনকাম করতে পারলে প্রতি মাসে ৩০ হাজার টাকা আয় করে আরও বেশি হয়ে যাবে।

ভিডিও এডিটিং সেক্টরের অনেক চাহিদা রয়েছে। আপনি যদি অনলাইনে বা অফলাইনে বিভিন্ন কোর্স করে ভিডিও এডিটিং শিখতে পারেন, তবে অনলাইন মার্কেটপ্লেস থেকে কাজ করে মাসে ৩০ হাজার টাকা আয় করা থেকে শুরু করে প্রচুর টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

ইমেইল মার্কেটিং করে টাকা ইনকাম

মূলত মানুষকে প্রমোশনাল ইমেইল পাঠিয়ে নিজের বা ক্লায়েন্ট এর ব্যবসার প্রচার বৃদ্ধি করাই হচ্ছে ইমেইল মার্কেটিং। নতুন গ্রাহকের কাছে পন্য বিক্রি করার জন্য অনেক প্রতিষ্ঠান ইমেইল মার্কেটিং করে থাকে। এছাড়াও, আপনার যদি একটি অনলাইন ভিত্তিক ব্যবসা থাকে, তবে আপনি ইমেইল মার্কেটিং করে আপনার ব্যবসার পুরনো গ্রাহকের কাছে আবারও সেবা বা পন্য বিক্রি করতে পারেন।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি সেক্টর হচ্ছে ইমেইল মার্কেটিং। ডিজিটাল এই যুগে আমরা যদি আমাদের ব্যবসার মার্কেটিং বা প্রচার করতে চাই, তবে আমাদেরকে ডিজিটাল ভাবেই মার্কেটিং করতে হবে। ডিজিটাল মার্কেটিং করার অনেক উপায় রয়েছে। এদের মাঝে একটি হচ্ছে ইমেইল মার্কেটিং। ইমেইল মার্কেটিং যেহেতু ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি সেক্টর, তাই আমরা ইমেইল মার্কেটিং করে টাকা ইনকাম করতে পারি। এক্ষেত্রে, আপনার যদি একটি ব্যবসায় থাকে,তবে নিজের ব্যবসা সম্পর্কে আপনার গ্রাহকদের কাছে বা সম্ভাব্য গ্রাহকদের কাছে ইমেইল করতে পারেন।

ইমেইল মার্কেটিং করতে পারলে শুধু নিজের ব্যবসার প্রচার নয়, আপনি চাইলে অন্যের হয়ে ইমেইল মার্কেটিং করে টাকা ইনকাম করতে পারেন। কিন্তু কিভাবে? ফ্রিল্যান্সিং এর বিভিন্ন সেক্টর রয়েছে। এদের মাঝে ডিজিটাল মার্কেটিং একটি। আর ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি কাজ হচ্ছে ইমেইল মার্কেটিং। আপনি যদি ইমেইল মার্কেটিং করতে পারেন, তবে অনলাইন মার্কেটপ্লেস থেকে প্রচুর পরিমাণে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এজন্য প্রথমেই আপনাকে একটি অনলাইন মার্কেটপ্লেসে একাউন্ট বানাতে হবে।

এরপর আপনাকে গিগ খুলতে হবে, সেখানে থেকে মানুষ আপনাকে অর্ডার দিবে। সেসব অর্ডার কমপ্লিট করে মাসে ৩০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

আমাদের শেষ কথা

আজকের এই পোস্টে আপনাদের সাথে প্রতি মাসে ৩০ হাজার টাকা আয় করার উপায় নিয়ে আলোচনা করেছি। এই পোস্টে যেসব বিষয় উল্লেখ করে দিয়েছি, এগুলো করে ন্যূনতম প্রতি মাসে ৩০ হাজার টাকা আয় থেকে শুরু করে এর অধিক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

Leave a Comment