ব্লগিং কি? ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় বিস্তারিত জেনে নিন

ব্লগিং কি এবং ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় এ বিষয়ে আমাদের মাঝে অনেকের তেমন ধারণা নেই। ব্লগিং করে অনেকেই প্রতি মাসে লক্ষাধিক টাকা ইনকাম করে থাকে। কিন্তু, অনেকেই আবার ব্লগিং কিভাবে করতে হয় জানেন না। আপনিও যদি একই সমস্যায় পড়ে থাকেন, তবে আপনাদের জন্যই আজকের এই পোস্ট।

আজকের এই পোস্টে আপনাদের সাথে ব্লগিং কি এবং ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় এসব প্রশ্নের উত্তর দিবো। এছাড়াও, ব্লগিং সম্পর্কিত আরও কিছু তথ্য শেয়ার করবো। আপনি যদি অনলাইন থেকে সহজ উপায়ে টাকা ইনকাম করতে চান, তবে এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন। তো চলুন, শুরু করা যাক।

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়
ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়

ব্লগিং কি?

আমার এই লেখাটি এখন একটি ওয়েবসাইটে পড়ছেন। আমার এই কাজটিই হচ্ছে ব্লগিং। অর্থাৎ, মানুষ গুগল সহ বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সার্চ করে থাকে। মানুষ যা জানার জন্য সার্চ করে, বা যা লিখে সার্চ করে থাকে, সেগুলোকে প্রতিটিকে কীওয়ার্ড বলা হয়। এসব কীওয়ার্ড নিয়ে ওয়েবসাইট বানিয়ে লেখালেখি করাই হচ্ছে ব্লগিং।

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় এ প্রশ্নটির উত্তর খুঁজতে নিশ্চয়ই আমাদের ওয়েবসাইটে এসেছেন। এখানে “ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়” একটি কীওয়ার্ড। তেমনি ব্লগিং কি একটি কীওয়ার্ড। এমন কোটি কোটি কীওয়ার্ড লিখে মানুষ গুগলে সার্চ করে থাকে। আপনি যদি এসব কীওয়ার্ড নিয়ে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে সেখানে লেখালেখি করেন, সেটি হবে ব্লগিং।

কিংবা, অনেকেই বিভিন্ন বিষয়ের উপর রিভিউ, নিজের মতামত প্রকাশ, গল্প, ইত্যাদি লিখে থাকে। একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে সেখানে বিভিন্ন বিষয়ের উপর লেখালেখি করা হলে সেটিকে ব্লগিং বলা হয়। যারা ব্লগিং করে তাদেরকে ব্লগার বলা হয়।

আরও পড়ুন – Google থেকে টাকা ইনকাম করার উপায়

আপনি হয়তো অনেকের থেকে শুনে থাকবেন যে, ব্লগিং করে টাকা আয় করা যায়। এই তথ্য আদৌ সঠিক কি না জানার ইচ্ছে নিশ্চয়ই জেগেছে। তো চলুন, এমন কিছু প্রশ্ন নিয়ে আলোচনা করা যাক।

ব্লগিং করে টাকা ইনকাম করার উপায়

ব্লগিং থেকে টাকা ইনকাম করতে হলে আপনাকে একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে ব্লগ তৈরি করতে হবে এবং সেই বিষয়ে লিখতে হবে। আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের এসইও করতে হবে এবং প্রয়োজনে মার্কেটিং করতে হবে, যেন আপনার ব্লগ মানুষের কাছে পরিচিতি পায়। আপনাকে ধৈর্য ধরতে হবে এবং আপনার ব্লগের পিছনে কাজ করে যেতে হবে কারণ ব্লগ থেকে টাকা ইনকাম করতে সময় লাগে। তবে, আপনি ব্লগ থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন এটা নিশ্চিত। নিচে কিছু বিষয় উল্লেখ করে দিলাম, এগুলো অনুসরণ করে আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

  • অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং: অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হল এমন একটি পদ্ধতি যেখানে আপনি অন্য কোম্পানির পণ্য সম্পর্কে আপনার ব্লগে লেখালেখি করবেন এবং যখন কেউ আপনার দেয়া অ্যাফিলিয়েট লিঙ্ক থেকে পণ্যটি কিনবে তখন আপনি কমিশন পাবেন।
  • পণ্য বিক্রয়: আপনি আপনার ব্লগে আপনার নিজের পণ্য বা সেবা বিক্রি করতে পারেন। এটি হতে পারে ই-বুক, কোর্স, সফ্টওয়্যার, বা এমনকি শারীরিক পণ্য। এতে করে আপনার ব্যবসার সম্প্রসারণ হওয়ার পাশাপাশি আপনি ব্লগ থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।
  • স্পনসরশিপ: আপনি আপনার ব্লগে বিজ্ঞাপনদাতাদের অ্যাড শো করে তাদের থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। বিজ্ঞাপনদাতারা আপনার ব্লগে বিজ্ঞাপন দেয়ার জন্য আপনাকে টাকা দিবে। এক্ষেত্রে গুগল অ্যাডসেন্স বা অন্য অ্যাড নেটওয়ার্ক সবথেকে কার্যকরী হতে পারে। আপনার ব্লগে যদি ভালো পরিমাণে ট্রাফিক বা ভিজিটর আসে, তবে সেটা থেকে টাকা উপার্জন করতে পারবেন।
  • সাবস্ক্রিপশন ফি: আপনি আপনার ব্লগে সাবস্ক্রিপশন ফিচার যুক্ত করতে পারেন। এতে করে, আপনার ব্লগের ভিজিটররা ব্লগে থাকা বিশেষ কোনো কন্টেন্ট পাবে। এভাবে করে অনেকেই টাকা উপার্জন করে থাকে। আপনিও চাইলে টাকা ইনকাম করতে পারেন।
  • ডোনেশন: আপনার ব্লগে যদি ভালো কন্টেন্ট থাকে, অনেক ভিজিটর থাকে, তবে আপনি ডোনেশন এর জন্য আপনার ব্লগের ভিজিটরদের বলতে পারেন। এটিও ব্লগিং করে আয় করার একটি মাধ্যম।

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় এ প্রশ্নের উত্তর দেয়া একটু কঠিন। কারণ, আপনি আপনার ব্লগের পিছনে কী পরিমাণ সময় ব্যয় করবেন, আপনার ব্লগ এবং ব্লগের এসইও এর কোয়ালিটির উপর নির্ভর করবে ব্লগিং করে কত টাকা ইনকাম করতে পারবেন। সাধারণত, যেসব ব্লগে ভিজিটর বেশি, সেসব ব্লগ থেকে অধিক ইনকাম হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

অধিক ট্রাফিক পাওয়ার জন্য আপনাকে কন্টেন্ট এর পাশাপাশি এসইও এর দিকে নজর দিতে হবে। এসইও যত ভালো করতে পারবেন, আপনার ওয়েবসাইটে তত বেশি ভিজিটর আসবে। ভিজিটর বৃদ্ধি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আপনার ওয়েবসাইট থেকে আসা ইনকাম ও বৃদ্ধি হবে।

আরও পড়ুন – গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? গ্রাফিক্স ডিজাইন কিভাবে শিখব

আমাদের দেশের ব্লগাররা সাধারণত প্রতি মাসে ব্লগিং করে ৪০ হাজার টাকা থেকে কয়েক লক্ষ টাকা অব্দি ইনকাম করে থাকে। আপনি যদি বাংলা কন্টেন্ট নিয়ে কাজ করেন, তবে অ্যাডসেন্স এর কিংবা অন্য অ্যাড নেটওয়ার্ক ব্যবহার করলে ইনকাম কম হবে। সেখানে, আপনি যদি ইংলিশ কন্টেন্ট নিয়ে কাজ করেন, তবে অ্যাড থেকে কয়েক গুণ বেশি ইনকাম করতে পারবেন। এছাড়াও, আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিক কোয়ালিটির উপর নির্ভর করেও ইনকাম হবে।

টায়ার ১ এর কান্ট্রিগুলো থেকে আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর এবং অ্যাড এ ক্লিক আসলে প্রতিদিন আপনি কয়েকশত ডলার অব্দি ইনকাম করতে পারবেন। তবে, বাংলা ওয়েবসাইট থেকে যে ইনকাম হবে না তেমন না। তবে, বাংলা ওয়েবসাইট থেকে ভালো পরিমাণ ইনকাম করতে হলে আপনার ওয়েবসাইটে ভালো পরিমাণ ভিজিটর থাকতে হবে। তবেই আপনি প্রতিদিন কয়েক শত ডলার অব্দি ইনকাম করতে পারবেন।

ব্লগিং করে কত টাকা ইনকাম করা যায় এমন প্রশ্নের উত্তর না খুঁজে আপনার উচিত ব্লগের ভিজিটর এবং কন্টেন্ট এর কোয়ালিটি বৃদ্ধি করতে সময় ব্যয় করা। এতে করে, আপনাআপনি আপনার ওয়েবসাইটের ইনকাম বেড়ে যাবে। কোয়ালিটি কন্টেন্ট থাকলে গুগলে ভালো পজিশনে র‍্যাঙ্ক করতে পারবেন এবং প্রতি মাসে কয়েক শত ডলার থেকে হাজার ডলার অব্দি ইনকাম করতে পারবেন।

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

একজন ব্লগার এর কাজ কি?

একজন ব্লগার এর কাজ হচ্ছে ব্লগ লেখা। মানুষ যেসব বিষয় জানার জন্য গুগল বা অন্য সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ দিয়ে থাকে, সেসব বিষয় নিয়ে তথ্যমূলক ব্লগ লেখাই হচ্ছে একজন ব্লগার এর কাজ। এছাড়াও, একজন ব্লগার শুধু কন্টেন্ট লেখেন না, সঙ্গে এসইও এবং ওয়েবসাইট ম্যানেজমেন্ট সম্পর্কিত আরও অনেক কাজ করে থাকেন।

ব্লগিং এর জনক কে?

ব্লগিং এর জনক হচ্ছেন ইভান উইলিয়ামস।

কিভাবে ব্লগিং শুরু করা যায়?

ব্লগিং শুরু করার আগে আপনাকে নির্বাচন করতে হবে কোন বিষয়ের উপর ব্লগ করবেন। এরপর, আপনাকে একটি প্লাটফর্ম নির্বাচন করতে হবে। এক্ষেত্রে ওয়ার্ডপ্রেস বেঁছে নিতে পারেন। অতঃপর, ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনতে হবে। ডোমেইন এবং হোস্টিং ক্রয় করার পর ওয়ার্ডপ্রেস কিংবা ব্লগার দিয়ে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে হবে। ওয়েবসাইট বানানো শেষ হলে ওয়েবসাইটের এসইও করতে হবে। এরপর, আপনার ব্লগ যে বিষয়ে, সে বিষয় নিয়ে কোয়ালিটি কন্টেন্ট লিখতে হবে। এভাবে করে ব্লগিং শুরু করা যায়।

আমাদের শেষ কথা

আজকের এই পোস্টে আপনাদের সাথে ব্লগিং কি এবং ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় এ বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছি। আশা করছি এই পোস্ট থেকে আপনাদের সাথে ব্লগিং বিষয়ক সকল তথ্য তলে ধরতে পেরেছি। এমন আরও পোস্ট পেতে প্রতিদিন আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।